এই মিথ্যে খেলা বন্ধ করুন

তৌহিদুল ইসলাম চঞ্চল

পোশাক শিল্প নিয়ে বিদেশী ষড়যন্ত্র বরাবরই রয়েছে তা আমাদের সকলের জানা। কিন্তু এ দেশেও এমন কিছু প্রচারপ্রেমী মানুষ আছে যারা হয়ত সস্তা টিআরপির জন্য কিংবা নিজেদের জাহির করার জন্য আমাদের প্রাণ পোশাক শিল্পকে নিয়ে নানামুখী ব্যতিক্রমি থিসিস করছেন আর সেসব তথ্য দেশের জাতীয় কিছু দৈনিকে সাপ্লাই দিচ্ছেন, আর সেইসব জাতীয় দৈনিকও চোখ বন্ধ করে আর কোনরূপ বিচার বিশ্লেষণ ছাড়া সেসব খবর হুবহু ছাপিয়ে নিজেদের ধন্য করছেন।

যারা বিভিন্ন জায়গার শ্রমিকের সাথে কথা বলে বিভিন্ন তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করেন ঠিকই কিন্তু শ্রমিক নামের এই শিশুদের কিভাবে প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করতে হয় সেই কৌশলটা মনে হয় তাদের জানা নেই। কেন জানি মনে হয় তারা এমনভাবে প্রশ্নগুলো করেন যার উত্তর ‘হ্যাঁ’ বা ‘না’ তে সীমাবদ্ধ থাকে! তারা আবার বলেন যে ঢাকা ও গাজীপুরে ৭২% গার্মেন্টস শ্রমিকরা নাকি নিয়োগ পত্র/ চুক্তি পত্র পায়না। কি আপনার বিশ্বাস হচ্ছে? না হলে ইংরেজী জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত সংবাদটি পড়ুন। শিরোনাম জানতে চান? “Most garment workers have no contract: survey”! তারা নাকি ঢাকা, গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জ এবং চট্টগ্রামে ৭৭০ জন শ্রমিকের উপর এই জরিপ চালিয়েছেন।

যে শ্রমিক সারাদিন হাড়ভাঙ্গা পরিশ্রম করে আর তাকে যদি বিকালে প্রশ্ন করেন যে, সে সকালে কি খেয়েছে তা মনে করতে ১০ মিনিট সময় নেয়, তাকে আপনি যদি কন্ট্রাক্ট লেটারের কথা জিজ্ঞাসা করেন সেক্ষেত্রে তার উত্তরটা কি হতে পারে! আমি মনে করি জরিপ পরিচালনাকারীরা শ্রমিকের সাইকোলজি না বুঝে বা তাকে প্রশ্ন করলে প্রশ্নের ধরণ কি হওয়া উচিৎ তা না বুঝে সরাসরি প্রশ্ন উপস্থাপন করেছেন। নয়ত তাদের সাথে শুধু দেখা করেছেন মাত্র আর পরবর্তীতে বাসায় বসে মনগড়া রিপোর্ট তৈরি করেছেন! তা নয় তো কি বলবো? এটা আমাদের বিশ্বাস করতে বলেন যে, বর্তমান পরিস্থিতিতে যেখানে চারিদিকের নজরদারির সাথে সাথে পোশাক শিল্প এইচআর কর্মকর্তারাও এই ব্যাপারে অনেক সতর্কতার ও নিষ্ঠার সাথে নিজেদের দায়িত্ব পালন করছেন, যেখানে মালিকরা কোটি কোটি টাকা নিরাপত্তার জন্য ব্যয় করছেন। যাদের নিরাপত্তার জন্য এসব করছেন তাদেরই নিয়োগ পত্র/ চুক্তিপত্র নাই এ কথা বলে প্লিজ হাসাবেন না। যদি বলতেন দায়িত্ব কর্তব্য জানানো হয়নি অর্থাৎ জব ডেসক্রিপশন দেয়া হয়নি তাহলেও মেনে নিতাম।

ভাবতেই অবাক লাগে এ ধরণের একটি মনগড়া রিপোর্ট প্রকাশও পেল আর একজন ব্যক্তিও পত্রপত্রিকায় এর বিরুদ্ধে কিছু লিখলো না, এ কেমন করে সম্ভব? মেনে নিলেন কিভাবে আপনারা? ১০ থেকে ২০ % বললে না হয় মেনে নিতাম কিন্তু ৭২% এটা কি ছেলে খেলা? আমি এই রিপোর্ট এর তীব্র নিন্দা জানাই। আমি বুকে হাত দিয়ে বলতে পারি কমপ্লায়েন্স ফ্যাক্টরীগুলোতে এই নিয়ম খুব ভাল ভাবেই মানা হয়। আর আমার মনে হয় আপনারা স্থানীয় ভাবে যারা পন্য উৎপাদন ও স্থানীয় বাজারে সাপ্লাই দেয় সে ধরণের ফ্যাক্টরীগুলোর শ্রমিকদের নিয়ে এই সার্ভে করেছেন, আর আপনাদের উদ্দেশ্যও ভাল ঠেকছে না।

জরিপ পরিচালনাকারীদের অনুরোধ করব দয়া করে এরপরে শ্রমিকদের কোন বিষয়ে কোন প্রশ্ন করলে তাদেরকে বিভিন্ন ধরণের উদাহরণ দিন, নইলে তাদের মনে করতে কষ্ট হয়। অনেক সময় আর মনে করতে না পেরে তারা ঝামেলা এড়াতে নেতিবাচক উত্তর দিয়ে ফেলতে পারে। সাধারণ শ্রমিকরা অডিট ইন্টারভিউ এগুলোকে প্রচন্ড ভয় পায়। তাদের মনের মধ্যে সবসময় ফ্যাক্টরীর প্রতি একটি টান থাকে, তারা কখনোই চায় না তাদের মাধ্যমে ফ্যাক্টরীর কোন ক্ষতি হোক, অতিরিক্ত স্ট্রেসের কারণে তাই অনেক সময় তারা জানা জিনিসটাও ভুল বলে। ধরুন আপনি প্রশ্ন করছেন নিয়োগ পত্র/ চুক্তিপত্র সম্পর্কে এক্ষেত্রে  প্রথমে যখন সে না বলে তখন তাকে কিছু ক্লু দিন যেমন, “মনে করে দেখেন তো যেদিন জয়েন করলেন সেদিন কিংবা দু একদিন পর এইচআর/ এডমিন একটি কাগজে সই নিয়েছিল কিনা , যেখানে আপনার বেতনের কথা লেখা ছিল, এবং হয়ত তার একটি ফটোকপি আপনাকে দেয়া হয়ে ছিল”। তাহলে দেখবেন একটা সঠিক উত্তর পাবেন হয়ত আপনার জন্য তেমন রসালো তথ্য পাবেন না কিন্তু সঠিক তথ্য পাবেন।

আরও অনুরোধ করব যেকোনো একটি কমপ্লায়েন্স ফ্যাক্টরীর এইচআর বিভাগের সাথে দু একদিন সময় কাটানোর , আর এতে তারা জানতে পারবেন যে এমনও অনেক ফ্যাক্টরী আছে যারা নিয়োগের দিনই চুক্তিনামা/ নিয়োগ পত্র দিয়ে থাকে, আবার অনেক ক্ষেত্রে দু একদিন লেগে যায়, তবে শ্রমিকরা যে তা পায় এটা নিশ্চিত জানবেন।

পরিশেষে বলতে চাই, নাম কিংবা অর্থ উপার্জনের বহু উপায় পাবেন কিন্তু দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করে অর্থ আয় করলে তা দেশের সাথে বেইমানি বলে গণ্য হবে। এ ধরণের মিথ্যে খেলা বন্ধ করুন।

লেখকঃ মানবসম্পদ প্রশিক্ষক

2 Comments

  1. 72% workers didnot get appointment letter-how it can be possible! The art of an auditor is not so easy to discover the truth and it only possible to did survey by immature or unprofessional surveyer. Thanks Towhid vai to highlighted this topics.

    • সুন্দর মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ। অনুগ্রহপূর্বক আরএমজি জার্নালের সাথে থাকুন। আপনাকে আমাদের লেখা পড়ার ও সম্ভব হলে লেখার অনুরোধ জানাচ্ছি ।
      ইমেইলঃ chanchal@musician.org
      sms on facebook page: https://www.facebook.com/rmgjournal/
      ভাল থাকবেন। শুভকামনা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*