বসকে যেভাবে বশ করা যায়?(পর্ব-১)

নূর-ই-আলম ফয়সল

শিরোনাম দেখে হয়ত ভাবছেন, বস কে জাদু টোনা দিয়ে বশ করার কোন উপায় নিয়ে লিখব কি না। ব্যপার টা ঠিক তা নয়। 

প্রথমেই বলি, আপনার বস আপনারই মত একজন মানুষ। তিনি ভিন গ্রহের কোন প্রাণী নন। তিনি তার সততা, মেধা আর কর্ম দক্ষতার ফলেই আজকের অবস্থানে এসেছেন।

কর্মক্ষেত্রে টিম ওয়ার্ক একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আপনি যখন কোন প্রতিষ্ঠানে নিয়োজিত, প্রথমেই আপনাকে দলগতভাবে কাজ করার কৌশল রপ্ত করতে হবে।  সে ক্ষেত্রে আপনার বসের দিক নির্দেশনা আপনার তথা পুরো প্রতিষ্ঠানের সফলতার চাবিকাঠি।

প্রথমেই আপনি একটি তালিকা করুন- কোন কোন গুণাবলীর জন্য আপনার বস আজ তার এই অবস্থানে আছেন। দেখবেন তার কর্মদক্ষতাই সবার আগে থাকবে। কারন তার দীর্ঘ কর্মজীবনে তিনি নানাবিধ সমস্যার সমাধান করেছেন তার অভিজ্ঞতা আর কৌশল দিয়ে। মনে রাখবেন, আপনি হয়ত পড়াশোনায় অথবা প্রযুক্তিগত ভাবে আপনার বসের চেয়ে ভাল হতেই পারেন। কিন্তু কর্মক্ষেত্রে এগুলোর পাশাপাশি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিক হচ্ছে সময়মত এবং সঠিক ভাবে যে কোন দায়িত্ব সম্পাদন করা।  এক্ষেত্রে সবচেয়ে সবচেয়ে জরুরী হচ্ছে অভিজ্ঞতা। সফলতার মানে হচ্ছে মেধা আর বিনিয়োগের সমন্বয়। এখানে বিনিয়োগ বলতে আমি আপনার দক্ষতা আর জ্ঞান বৃদ্ধির পেছনে সময় ব্যয় করাকে বুঝাচ্ছি।


এবার আসুন বস কে বশ করার প্রথম একটি কৌশল নিয়ে আলোচনা করা যাক-

কৌশল নাম্বার -১ (বসকে জানুন)
সক্রেটিস বলেছিলেন, “ নিজেকে জানো”। তেমনি কর্মক্ষেত্রে আমি বলব – “ বসকে জানুন”। আপনি পর্যবেক্ষণ করুন আপনার বস সারাদিন কি করে, কোন কোন কাজকে তিনি প্রায়োরিটি দিচ্ছেন, তার বিশেষ কি কি দক্ষতা আছে, তিনি কিভাবে আপনাকে মুল্যায়ন করেন এবং তিনি কি কি জিনিসে মোটিভেটেড হন। তার কাজগুলো টিমের মাঝে বন্টনের দক্ষতা, দায়িত্ত্বশীলতা, সময়-ব্যবস্থাপনা, কমিউনিকেশন স্কিল আপনি পর্যবেক্ষণ করুন। আপনি সিদ্ধান্ত নিন তিনি কোনটা চাচ্ছেন- কর্মস্থলে খ্যাতি, সবার সাথে যোগাযোগ বৃদ্ধি, ক্ষমতা নাকি কেবল তার দায়িত্ব সময়মত শেষ করা। আপনি সেভাবেই তার কাজে সহযোগিতা করুন।



(আগামী পর্বে পড়ুন আরও কিছু টিপস)

লেখকঃ  ইসি ও ফেলো মেম্বার, বাংলাদেশ সোসাইটি ফর হিউম্যান রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*