বেকারত্বের অভিশাপ এবং বাংলাদেশের জব মার্কেটের চলমান রুঢ় বাস্তবতা

ওয়ালিদুর রহমান 

আমার ফেসবুক ও লিংকডইন নেটওয়ার্কের একটা বড় সংখ্যক মানুষ হলেন ফ্রেশার বা অভিজ্ঞতাসম্পন্ন চাকরীখোঁজক। তাদের একটা বড় সংখ্যকই বিপদে পড়া প্রার্থী। ছোটোখাটো বিপদ না, অমানবিক রকমের বিপদ।

আমার নিজেরই নিজের জন্য অসহায় লাগে।

আমি নিজে খুব বড় হাস্তি কেউ না। তার উপর আমার নেটওয়ার্কটা খুব ছোট। সময়টাও সত্যি খুব খারাপ। চাকরীর বাজারের ভয়াবহতম অবস্থা। বিশাল সংখ্যক প্রতিষ্ঠানে কোনো এমপ্লয়মেন্ট তৈরী হচ্ছে না।

পরিচীতরা মনে করে, আমাদের হাতে কত চাকরী। চাইলেই আমরা কিছু করতে পারি। এমবিএ করা প্রার্থীর পিয়নের চাকরী চাইবার ঘটনাও ঘটেছে। দীর্ঘ অভিজ্ঞতাসম্পন্ন মানুষ চাকরী হারিয়ে বা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে/বিদেশে শিফট হয়ে, মাথা গরম করে চাকরী ছেড়ে, বড় কিছুর আশায় নতুন কোথাও জয়েন করে আসল চেহারা টের পেয়ে ভয়ঙ্কর অনিশ্চয়তায় পড়ে শ্বাসরুদ্ধকর অবস্থায় দিন কাটাচ্ছেন।

চরম ফ্রাস্ট্রেশনে ফ্রেশাররা। কোথাও ডাক পর্যন্ত পাচ্ছেন না।

বিপদে পড়া মানুষগুলোর জন্য কিছু করতে ইচ্ছে করে, চেষ্টা করি বিভিন্ন সুযোগের সাথে ওনাদের লিংক করিয়ে দিতে। কিন্তু চাকরী দাতা, লিংকার, মিডলম্যান ও ইন্টারভিউয়ারদের অযৌক্তিক দৃষ্টিভঙ্গি, প্রতিষ্ঠানের সেঁকেলে ও ভুল সিস্টেম আর চাকরী দাতাদের খামখেয়ালী ও আন্তরিকতার অভাব এই প্রার্থীদের হতাশার অতলে ডোবাচ্ছে। এর সাথে যোগ হয়েছে বড় বড় পজিশনে থাকা কিছু মানুষের সাহায্য করার অনীহা আর পায়াভারি হয়ে বড়শিতে খেলানোর মেন্টালিটি।

পাশাপাশি (কিছু কিছু) প্রার্থীদের সীমাহীন অদক্ষতা, অযোগ্যতা, ক্ষমার অযোগ্য সিরিয়াসনেসের অভাব আর টপ ক্লাস চাকরীর প্রতি তীব্র টান তাদের ভাগ্যের চাকা ঘুরতে দিচ্ছে না। দেশে ২৬ লাখ বেকার>চাকরী নেই- এটা যেমন সত্যি, তেমনি, দেশের বড় সংখ্যক প্রতিষ্ঠান যোগ্য ম্যানপাওয়ারের অভাবে ধুঁকছে, লস করছে।

অফিসার হতে ডিরেক্টর-উপযুক্ত ম্যানপাওয়ারের তীব্র হাহাকার।

তবে হ্যা, আমার একযুগের এইচআর শিক্ষা বলে, আমাদের দেশের একটা বড় সংখ্যক প্রতিষ্ঠান (সবাই না) ট্যালেন্টেড ও স্মার্ট এমপ্লয়ী পাবার অধিকার রাখেন না। কারন তারা স্মার্ট লোক হায়ার করতে চান নাকি অন্য কিছু চান-সেটা নিজেরাই জানেন না।

১০০ লোক ইন্টারভিউ করে একজন পাওয়া যায়না প্রায়ই। সম্প্রতি একটি প্রতিষ্ঠানের জন্য ডিরেক্টর সোর্স করতে গিয়ে রাগে চুল ছেঁড়ার অবস্থা। ভাবি, কী রকম মানুষ নিয়ে কোম্পানীগুলো চলছে। স্যরি,

আমি বলতে চাচ্ছি না, আমি কোনো বিরাট আবদুল্লা হয়ে গিয়েছি। কিন্তু আমার মতো অযোগ্যর চেয়েও যদি আরো অযোগ্য একদলকে দেখি বড় পদ বাগিয়ে বসে আছেন তবে কী করা উচিৎ? ওঁদের চেয়ার দখল করে রাখার কারনে নিচের দিকের বা বাইরের মার্কেটের ট্যালেন্টেড মানুষেরা বড় পদে যেতে পারছেন না। এ এক অসহ্য অচলাবস্থা।

আমার সাধ্যমতো চেষ্টা করেও পারছি না তেমন এগোতে। ক্ষমা চাই সাহায্যপ্রার্থীদের। একসময় নিজে যেই অসহ্য অচলাবস্থার মধ্যে দিয়ে গিয়েছি আজ সেই অবস্থায় থাকা মানুষদের জন্য খুব একটা কিছু করতে পারছি না।

আমি আমার নেটওয়ার্কের সকল সম্মানিত কর্পোরেট পার্সোন, ফ্রেশার, অভিজ্ঞদের কাছে জানতে চাই, কী করনীয় আছে এই পরিস্থিতি অবসানে-উভয় পক্ষের? সত্যিই জানতে চাই। দয়া করে কেউ বলবেন?

লেখক : মানবসম্পদ পেশাজীবি

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*