এইচআর-এ ক্যারিয়ার গড়তে করণীয়

মুজাহিদুল ইসলাম জাহিদ

এইচআর-এ ক্যারিয়ার গড়বেন? আমার অভিজ্ঞতা থেকে বলতে চাই;

১। ব্যবসা বুঝুনঃ
ব্যবসা বুঝে, ব্যবসার প্রয়োজনে এইচ আর প্রফেশনালরা নিজেদের বদলাতে না পারার কারনে, বছরের পর বছর ওই একই পলিসি আওড়াতে থাকেন আর বলেন, ‘ধুর, কেউ পলিসি মানেন না!’। আসলে, এধরণের হা-হুতাশ প্রকৃত এইচআর-এর প্রতিনিধিত্ব করেনা। ব্যবসা যেমন গতিশীল, কোম্পানির পলিসি-প্রক্রিয়াও তেমন গতিশীল। কিন্তু ব্যবসা না বুঝলে, ব্যবসার গতির সাথে নিজেদের তাল ঠিক রাখতে না পারলে, ব্যবসা-বান্ধব নীতিমালা কখনই আপনি তৈরি করতে পারবেননা। যার ফলে, ব্যবসা কখনই আপনাকে গ্রহণ করবেনা। টেবিলে জায়গা দেয়া তো দুরেই থাক। এজন্য, এইচ আর প্রফেশনালদের কাছে অনুরোধ, ব্যবসা বুঝুন, নিয়মিত মার্কেটে যান, প্রোডাকশন ফ্লোর-এ হাঁটাহাঁটি করুন, অফিসে বিভিন্ন বিভাগের লোকজনদের সাথে কথা বলুন, মিশুন, বুঝুন কে কি করে, কিভাবে করে, কেন করে, কোনটা করতে কি লাগে, কিভাবে কি পাওয়া যায়। বুঝতে চেষ্টা করুন আপনার কাজ কি, কিভাবে ওই লোকগুলোকে আপনি হেল্প করতে পারেন। ব্যবসার প্রত্যেকটা খুঁটিনাটি (যেটাকে বিজনেস আকিউমেন বলে) রপ্ত করুন। দেখবেন, ব্যবসাই আপনাকে খুঁজে বেড়াচ্ছে।

২। ভালো করে অংক করতে শিখুনঃ
এইচআর-এর লোকজনদের সংখ্যা নিয়ে খেলতে শিখতে হবে, এবং পারতে হবে অন্য যে কোনও প্রফেশনালদের চেয়ে বেশী। হাওয়ার উপর কথা বলার দিন অনেক আগেই শেষ। এখন আপনাকে সংখ্যা দিয়ে বুঝাতে পারতে হবে, কেন, কি করতে চান। যদি সংখ্যা দিয়ে বুঝাতে না পারেন এবং কাজ মূল্যায়নের সময় যদি বলেন, ‘অপেক্ষা করুন ও ধৈর্য ধরুন, একদিন না একদিন ফল পাবেনই’ তাহলেই সেরেছে। হ্যাঁ, একথা সত্য এবং প্রমানিত যে, আমাদের কিছু কাজকে সংখ্যায় দেখানো খুবই মুশকিল এবং কিছু কিছু ক্ষেত্রে অনুমান নির্ভর। কিন্তু হাল ছেড়ে দিলে চলবে না। প্রতিনিয়ত অংক নিয়ে খেলতে থাকতে হবে আর নিত্যনতুন পন্থা দিয়ে ব্যবসায় সংখ্যার দৌরাত্বকে পাল্লা দিয়ে, নিজেদের দৌড়াতে হবে।

৩। তুমুল বিশ্লেষণী ক্ষমতা রপ্ত করুনঃ
দুইটা বিষয় মাথায় রাখতে হবে, একটা হল মেট্রিক্স (সংখ্যা-নির্ভর ঘটে যাওয়া তথ্য) আর আরেকটা হল এনালাইটিক্স (সংখ্যা-নির্ভর ভবিষ্যৎ সম্পর্কিত তথ্য)। আরও একটু পরিষ্কার করি; এই মাসে কতজন হেড কাউন্ট এটা হল মেট্রিক্স আর গত তিন মাসে কতজন হেড কাউন্ট ছিল, কত গুলি মেশিন আসবে, কত টাকা বিনিয়োগ হবে, ভবিষ্যৎ পরিবেশ কেমন থাকবে তার বিশ্লেষণ করে, আগামী মাসে কত হেড কাউন্ট হবে, এটা বলতে পারার নাম এনালাইটিক্স। আরও সহজ হল, মেট্রিক্স শুধু সংখ্যা দিয়ে ইতিহাস বলবে আর এনালাইটিক্স বেশ কিছু টুল ব্যবহার করে একটা সংখ্যাগত সিদ্ধান্তে উপনীত হবে। এবার বুঝুন, এইচআর প্রফেশনালরা যদি এই এনালাইটিক্স-এর উপর দক্ষতা অর্জন করে, ব্যবসার গতি-প্রকৃতি না বুঝতে পারেন, তবে প্রোএক্টিভ রোল কিভাবে প্রদর্শন করবেন? এজন্য, সব এইচআর প্রফেশনালদের রিগ্রেশন, এক্সপোনেন্সিয়াল স্মুদিং, মুভিং এভারেজ, ট্রেন্ড এনালাইসিস ইত্যাদি সম্পর্কে খুব খুব ভালো ধারনা থাকা বাঞ্ছনীয়।

৪। নেগোশিয়েট করবার বুদ্ধি শিখুনঃ
পেশাগত কারনেই, এইচআর প্রফেশনালদেরকে বিভিন্ন রকম নেগোশিয়েশন প্রক্রিয়াতে অংশ নিতে হয়। যেমন নতুন হায়ারিং এর সময় বেতন-প্রস্তাব নিয়ে আলোচনা, ট্রেড ইউনিয়ন- সিবিএ এর সাথে হরেক রকম দাবি-দাওয়া নিষ্পত্তি সহ ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে নানাবিধ সমস্যা নিয়ে আলোচনা করে একটা ফলপ্রসূ সমাধান কিন্তু এইচআর কেই বের করতে হয়। এখন এইচআর প্রফেশনাল যদি মুখলুকো হন এবং এসারটিভ (অন্যের অধিকার খর্ব না করে, নিজের অধিকার আদায় করবার ক্ষমতা) না হতে পারেন তবে কিভাবে এইচআর-এর বিশ্বাসযোগ্যতা তুলে ধরবেন? তাই, আমার যুক্তি হল, তথ্য নিয়ে কথা বলতে শিখুন, এমনভাবে নেগোশিয়েট করুন যাতে উইন-উইন অবস্থা বিরাজ করে।

৫। মানুষ নিয়ে কাজ করবার প্রগাঢ় আগ্রহ ধারণ করুনঃ
প্রথম কথাই হল, ‘প্যাশন’ না থাকলে এ পেশায় না আসা বা না থাকাই ভালো। এই পেশায় আপনার ‘প্যাশন’ আছে কিনা সেটা বুঝবার অন্যতম বড় কেপিআই হল, আপনি মানব সম্পদের সাথে কি ধরনের ব্যবহার প্রদর্শন করেন। সাক্ষাৎকারে কল করে ঘণ্টার পর ঘণ্টা বসিয়ে রাখবেন, প্রার্থী আসার পর তাকে একটু হাসি দিয়ে অভিবাদন জানাবেন না, এক গ্লাস পানিও অফার করবেন না, নিজে থেকে তো আপডেট দেবেন না কিন্তু কল করে আপডেইট চাইলে ঝাড়ি দেবেন আবার নিজেকে এইচআর প্যাশনেট দাবী করবেন, খুবই লেইম হয়ে যায় না?!!! মানব সম্পদরা যদি আপনার কাছে আসতে-মিশতে ভয় পায়, আপনার সাথে কথা বলতে ইতস্তত করে, আপনি কল করলেই তাদের কাঁপুনি ধরে তবে বিশ্বাস করুন, আপনি এইচআর-এর ধারে-কাছ দিয়েই হাঁটেন না। আপনার কাছে সবার আগে মানব সম্পদের সাথে প্রফেশনাল বিহেভিয়ার খুবই গুরত্বপুর্ন। এ পেশায় বড় হতে হলে, মানুষের সাথে মিশতে হবে অবারিত ভাবে, খোলা মনে তবে নিশ্চয় সীমানা টা জানতে হবে। প্রগাঢ় আগ্রহ নিয়ে কাজ করলে, মুখ থেকে হাসি হারিয়ে যাবেনা কখনই।

বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ নিতান্তই ব্যক্তিগত মতামত। আসলে গত কয়েকদিন, অনেকেই এই প্রশ্ন টা করছিলেন। উত্তর দেবার চেষ্টা করলাম। কারও কাজে লাগলে ভালো লাগবে আর যদি না লাগে, আগেই ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি।
লেখকঃ এস পি এইচ আর আই, মানব সম্পদ প্রফেশনাল , সুপারিন্টেনডেন্ট, হিউম্যান রিসোর্সেস গিল্ডান বাংলাদেশ

 

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*