COMMUNICATION SKILL

আপনি বেসরকারী বা সরকারী, দেশে বা দেশের বাইরে যে সেক্টরে-ই কাজ করেন না কেন সবখানেই Communication Skill এর গুরুত্ব অপরিসীম। আরো সহজ ভাবে যদি বলি সেক্ষেত্রে আপনার চাকুরীর ইন্টারভিউ-এ কল পাওয়া থেকে শুরু করে ইন্টারভিউ বোর্ডে ভাইভা, চাকুরীতে যোগদান করা, যোগদান করার প্রথম দিন থেকে শেষ দিন পর্যন্ত তথা চাকুরী জীবনের সবখানেই Communication Skill এর যে গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব রয়েছে তা লক্ষ্য করে থাকবেন। শুধু চাকুরি নয় ব্যবসা বাণিজ্যের অপরিহার্য্য একটি অংশ হচ্ছে Communication. অর্থাৎ যে সেক্টরে-ই কাজ করেন না কেন আপনার উপর Communication Skill এর IMPACT পড়বেই।

আপনি কিভাবে কারো কথা শোনেন, কিভাবে কথা বলেন, কিভাবে কাউকে ইমেইল লিখেন বা ইমেইলের উত্তর দেন, কিভাবে ফেসবুকে চ্যাট করেন, কেমন করে ফোনালাপ করেন, কিভাবে মিটিং/ট্রেনিং/সেমিনার/কনফারেন্স -এ কথা বলেন বা অন্যের কথা শোনেন /প্রশ্ন করেন, আপনার বডি লাংগুয়েজ কেমন, আপনার আই কন্টাক্ট, কারো কথায় কিভাবে রিয়্যাক্ট করেন, কিভাবে একজন অপরিচিত মানুষের সাথে কথা বলেন বা সে কিছু বললে কিভাবে উত্তর দেন ইত্যাদি ছাড়াও আরো অনেক  কিছু রয়েছে যার সাথে Communication Skill সরাসরি সম্পৃক্ত। এমনকি আপনি যেদিন প্রথম আপনার পছন্দের মানুষটির সাথে কথা বলেন বা চোখাচোখি হয় বা দেখা করেন সেক্ষেত্রেও Communication Skill এর সম্পৃক্ততা রয়েছে।

মজার ব্যাপার হচ্ছে জন্মের পর থেকে সেই কান্নার আওয়াজ দিয়ে শুরু হয় আমাদের Communication বা যোগাযোগ! এরপর মাম্ মাম্ মাম্ শব্দ থেকে শুরু করে স্কুল, কলেজ, ভার্সিটি পর্যন্ত আমরা অটোমেটিক্যালি প্রকৃতিগত ভাবে যোগাযোগ করতে শিখি।

এখন আলোচনা করা যাক আপনার Communication Skill কে আরোও ভালভাবে, আরোও প্রফেশনালি  উন্নত করলে আপনার কি লাভ সে বিষয়ে।

এক্ষেত্রে আপনার লাভ হল আপনি উন্নত Communication Skill এর মাধ্যমে হতে পারবেন একজন ভাল এমপ্লয়ি, ভাল ছাত্র, ভাল শিক্ষক, ভাল ব্যবসায়ী। এমনকি একজন ভাল LEADER হতে হলেও অবশ্যই আপনার Communication Skill ও ভাল হতে হবে।  সর্বোপরি একজন ভাল মানুষ হিসাবে নিজেকে গড়ে তুলতে পারেন Communication Skill এর মাধ্যমে (একটু গভীরভাবে চিন্তা করলে আপনি নিজেই তা উপলদ্ধি করতে পারবেন )। তাই যত বেশি সম্ভব আপনার Communication Skill কে উন্নত করুন মানে আরো উপরের লেভেলে নিয়ে যান, আরো উচ্চ স্থানে নিয়ে যান।

 

আমি এখানে  কমিউনিকেশন এর কিছু ব্যাসিক নিয়ে কথা বলব, আশা করি অনেকের কাজে লাগবে।

What is Communication skill?

Communication/ যোগাযোগ:

যে কাজের (act) মাধ্যমে কোন তথ্য/বার্তা এক স্থান হতে অন্য স্থানে প্রেরণ করা হয় মানে একজন থেকে আরেকজন/অনেকজন বা অনেকজন থেকে একজনের নিকট প্রেরণ করা হয় সেটাই Communication.

It may be vocally (using voice), written (using printed or digital media such as books, magazines, websites or emails), visually (using logos, maps, charts or graphs) or non-verbally (using body language, gestures and the tone and pitch of voice).

(যোগাযোগ হতে পারে কথোপকথনের মাধ্যমে (কণ্ঠস্বর ব্যবহার করে), লিখিত ( প্রিন্ট করা কিংবা ডিজিটাল মিডিয়ার মাধ্যমে যেমন পুস্তক, ম্যাগাজিন, ওয়েবসাইট, অথবা ইমেইল) প্রদর্শনীর মাধ্যমে( লোগো, ম্যাপ, চার্ট অথবা গ্রাফ ইত্যাদি ব্যবহার করে), অমৌখিক (যেমন শরীরের অঙ্গ ভঙ্গি , মুখমন্ডলের অভিব্যক্তি , কণ্ঠের স্বর ও চার্ট বা গ্রাফের মাধ্যমে)

 

Communication Skill:

The ability to communicate information/message accurately, effectively, efficiently, clearly and as intended, is a vital life skill and something that should not be overlooked.

(আর যোগাযোগের দক্ষতা হল যেকোনো তথ্য/বার্তা সঠিক, কার্যকরী, দক্ষতার সাথে, পরিস্কারভাবে উপস্থাপনের দক্ষতা যা এটির অভীষ্ট লক্ষ্যকে পূরণ করে। এটা একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও প্রয়োজনীয় দক্ষতা যা উপেক্ষা করা সম্ভব নয়)

Good Communication Skill এর জন্য কিছু বিষয়ে লক্ষ্য রাখা ভীষণ দরকারঃ

 

১। মনোযোগঃ

যার সাথে তথ্য আদান-প্রদান করছেন তার প্রতি মনোযোগ দেওয়া টা খুব জরুরী। তা না হলে তথ্য আদান-প্রদান কার্যকর হবে না। আপনাকে ভাল শ্রোতা হতে হবে। উদাহরণস্বরুপ বলা যেতে পারে ধরুন, আপনি আপনার সিইও এর সাথে কথা বলছেন কিন্তু কথাপকথোনের মাঝখানে গত কাল সিইও স্যার কি কাজ দিয়েছিলেন সেই কথা গুলো মনে করার চেষ্টা করছেন। এর ফলে দুটি নতুন সমস্যার সৃষ্টি হতে পারে যথা এক. সিইও বুঝে যেতে পারে আপনার মনোযোগ নেই তার কথায়। কিংবা দুই. এর ফলে এখন সিইও যা বলছেন সেই কাজ/কথা গুলো গুলিয়ে ফেলতে পারেন। যদিও পুনরায় জানতে চাওয়া মানে তাকে বুঝতে দেয়া যে আপনি তার কথাগুলো মনোযোগ দিয়ে শোনেননি তবুও এখনকার সঠিক কাজটি করতে প্রয়োজনে পুনরায় জানতে চান ।

 

২। মিডিয়াম/চারিপাশের পরিবেশের দিকে লক্ষ্য রাখাঃ

তথ্য আদান-প্রদানের জন্য মিডিয়ামের দিকে/চারিপাশের পরিবেশের দিকে আপনাকে লক্ষ্য রাখতে হবে।  ধরুন, আপনি একটি বাজারে রয়েছেন এবং আশেপাশে গাড়ির হর্ণ ও মানুষের কোলাহলও আছে। সেখানে আপনার রিপোর্টিং বসের সাথে অফিসের গুরুত্বপূর্ণ বিষয় যেমন স্যালারি শীট নিয়ে ফোনে কথা বলছেন। বুঝুন ব্যাপার টা কেমন হতে পারে! এক্ষেত্রে আপনি আপনার বসকে আপনি কোথায় এবং কি পরিস্থিতে আছেন তা আপনার বুঝিয়ে বলুন।

আবার এমনও হতে পারে যে, আপনার কোম্পানীর এমডি এইমাত্র একজন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তার ভুল কাজের জন্য তার ওপর রেগে গেছেন এবং বিষয়টি আপনি জানেন। আর আপনি বিষয়টি জেনেও তার কাছে গিয়েছেন বিগ বাজেটের একটি প্রজেক্টের  Approval sign করাতে । ভাবুন তো পরিস্থিতিটা  কেমন হতে পারে! তাই সবসময় আপনাকে  চারিপাশের পরিবেশের দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে।

 

৩। রিপিটঃ

যার সাথে তথ্য আদান-প্রদান করছেন তার সেই তথ্য শুনতে না পেলে বা বুঝতে না পারলে বা মিসিং হলে রিপিট করুন। কি শুনতে বা কি বুঝতে পারেননি প্রয়োজনে পুনরায় শুনুন।

 

৪। Clarity and Concision:

যতটুকু তথ্য আদান-প্রদান করলে কাজ হবে সেটুকুতেই সীমাবদ্ধ থাকা একটি বড় যোগ্যতা। অযথা কথা না বাড়ানো ভাল।

 

৫। Friendliness/Open Minded:

সম্ভব হলে হাসিখুশি মনে তথ্য আদান-প্রদান করুন। সর্বোচ্চ চেষ্টা করবেন যেন ভদ্র ভাবে তথ্য আদান-প্রদান করতে পারেন এমনকি যদি অপরজন খুব উত্তেজিত হয়ে তথ্য আদান-প্রদান করতে থাকেন সে সময়ও এই বিষয়টি লক্ষ্য রাখতে হবে।

 

৬। Empathy and Respect:

যার সাথে তথ্য আদান-প্রদান করছেন সে যদি আপনার সাথে ভিন্নমত পোষণ করে তবুও তাকে সম্মান করুন।

 

৭। Constructive Feedback:

যার সাথে তথ্য আদান-প্রদান করছেন তাকে গঠনমূলক মতামত দিন।

 

৮। Nonverbal Communication:

আপনি যখন আপনার বডি লাংগুয়েজের মাধ্যমে, eye contact, hand gestures মাধ্যমে তথ্য আদান-প্রদান করেন  সেক্ষেত্রে সতর্ক থাকুন যেন ভুল বুঝাবুঝি না হয়।

 

৯। গ্রহণ করার ক্ষমতা-১ঃ

আপনি কার সাথে তথ্য আদান-প্রদান করছেন খেয়াল করুন এবং সেই তথ্য তার গ্রহণ করার ক্ষমতা কতটুকু আছে সম্ভব হলে যাচাই করুন। উদাহরণস্বরুপঃ  ধরুন, আপনি আপনার কর্পোরেট অফিসের ওয়ার্কার লেভেল, অফিসার লেভেল, ম্যানেজার লেভেল, সিইও লেভেলের কর্মকর্তা দের কে Energy Management বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিবেন। কোন লেভেল কে কিভাবে শেখালে প্রশিক্ষণটি সহজ, সফল এবং EFFICIENT হবে সেই দিক টা লক্ষ্য রেখেই আপনাকে প্রয়োজনীয় তথ্য/জ্ঞান সরবরাহ করতে হবে।

গ্রহণ করার ক্ষমতা-২ঃ

আপনি কার সাথে তথ্য আদান-প্রদান করছেন খেয়াল করুন এবং সেই তথ্য আপনার গ্রহণ করার ক্ষমতা কতটুকু আছে সম্ভব হলে যাচাই করুন।উদাহরণস্বরুপঃ  ধরুন, আপনি নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্লান্টের উপর কেবল পড়াশুনা শুরু করেছেন। এসময় আপনি কোন একটি নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্লান্টের ক্রিটিক্যাল অপারেশন বিষয়ক কর্মশালাতে আছেন কিন্তু কিছুই বুঝতে পারছেন না। প্রশিক্ষক কি বলছে বা কি শেখাতে চাচ্ছে (ধরে নেওয়া হচ্ছে প্রশিক্ষক যোগ্যতাসম্পন্ন) সে বিষয়গুলি আপনার বোধগম্য হচ্ছেনা। সেক্ষেত্রে আপনাকে আপনার গ্রহন করার যোগ্যতা নিয়েও ভাবা উচিত। হয়তো এই কর্মশালাটিতে আরো বেশ কিছুদিন পর এবং বেশ কিছু কাজ করার পর অংশগ্রহন করলে ভাল বুঝতে পারতেন।

 

প্রত্যেকের একটি নিজস্বতা রয়েছে আর সে তার নিজস্ব পদ্ধতিতেই অন্যের সাথে যোগাযোগ স্থাপন করে। উপরে উল্লেখিত বিষয়গুলির দিকে খেয়াল রাখলে অবশ্যই তা সকল ক্ষেত্রে সহায়ক হবে।

Best wishes for the LEARNER!!

Happy Learning!!!

#COMMUNICATION

#COMMUNICATION_SKILL

#COMMUNICATION_SKILL_BY_AHASAN_HABIB

#CONTINUE……….

AHASAN HABIB

HR & Compliance Professional

Passionate Learner and KIE Sharing Distributor (PLKIED)

2 Comments

    • সুন্দর মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ। অনুগ্রহপূর্বক আরএমজি জার্নালের সাথে থাকুন। আপনাকে আমাদের লেখা পড়ার ও সম্ভব হলে লেখার অনুরোধ জানাচ্ছি ।
      ইমেইলঃ chanchal@musician.org
      sms on facebook page: https://www.facebook.com/rmgjournal/
      ভাল থাকবেন। শুভকামনা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*