Sustainability ও কিছু কথা

মোহাম্মদ আল তৌহিদুল ইসলাম

আমরা গত বৎসর যাবত্  গার্মেন্টস এবং টেক্সটাইল সেক্টরে Sustainability নিয়ে অনেক কথা শুনেছি এবং অনেক ধরনের Sustainable Project কাজ করেছি কিন্তু কখনও কি আমরা বুঝতে পারছি কিভাবে আমরা এর সাথে সম্পৃক্ত আছি ?

ধরুন আপনার প্রতিষ্ঠান, যা কিনা খুবই লাভবান প্রতিষ্ঠান এবং প্রতি বছর কোম্পানী লাভের যে টার্গেট নেয় তা তারা অর্জন করে কিন্তু কিছু বিষয়কে তারা উপেক্ষা করে। হঠাৎ একদিন কোন এক ছোট কারণে আপনার প্রতিষ্ঠানে বিশৃংখলা সৃষ্টি হয়, যা কিনা মালিক এবং শ্রমিকের মধ্যে দুরত্ব তৈরী করে। বলুনতো এটাকে কি Sustainable Industry বলা যাবে ?  উত্তরটা পরে দিন।

আবার ধরুন আপনার প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিয়ত বিভিন্ন প্রকারের প্রাকৃতিক সম্পদ ব্যবহার করেন যা প্রয়োজনের তুলনায় অনেক বেশি এবং আপনার কোম্পানী প্রাকৃতিক সম্পদের রক্ষনাবেক্ষণ বা সংরক্ষণের জন্য কোন প্রকার কর্ণপাত করেন না। মনে করে এটা অপ্রয়োজনীয় প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে কোম্পানী আরও বিনিয়োগ বাড়াবে, হোকনা একটু প্রয়োজনীয়তার চেয়ে একটু বেশি, তাতে কি ! উৎপাদন মূল্য তো প্রতিদিন বাড়বেই ! পানি, গ্যাস বা বিদ্যুত্ এর ব্যবহার তো  প্রতিপিছে বাড়ছে এবং বাড়বেই ! বলুনতো এটা কি Sustainable Industry বলতে পারি ?

অথবা, ধরুন আপনার প্রতিষ্ঠান যেখান থেকে কাচামাল ক্রয় করে সেটা কোন প্রকার আন্তর্জাতিক নিয়ন্ত্রের বাহিরে বা নিষিদ্ধ কোন দেশ হতে আসে, তাহলেও কি আমরা এই ইন্ডাস্ট্রিকে Sustainable ইন্ডাস্ট্রি বলবো ?

যাই হোক প্রতিটি ব্যাখ্যার সাথে Sustainable এর একটি সুসম্পর্ক আছে যা সংক্ষিপ্তরুপে আলোচনা করা হল;

Sustainability এসেছে Latin শব্দ sustinere হতে। sustain এর অর্থ হচ্ছে রক্ষনাবেক্ষণ বা সমার্থন ইত্যাদি। এটা ১৯৮০ সাল হতে ব্যবহারিত, যা কিনা প্রথমে মানুষের এই বিশ্বে আজীবন সুন্দর বা সুরক্ষিতভাবে বেচে থাকার জন্যে ব্যবস্থাপনা তৈরী করে। পরবর্তীতে জাতিসংঘ এটাকে Sustainable Development এ রুপ প্রদান করেন। ২০০৫ সালে জাতিসংঘ এর সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ট ওয়ার্ল্ড সামিট নামক সেমিনারে সর্বপ্রথম এর ত্রি-মান্ত্রিক রুপরেখা প্রদান করেন তা হলো সামাজিক বা Social, Economy বা অর্থনীতি এবং Environment বা পরিবেশ।

দেখুন আমরা ঘুরে ফিরে কোন না কোন ভাবে এই তিনটি যে কোন মাত্রার সাথেই সম্পৃক্ত। আমার লেখার প্রথম যে উদাহরণ ছিল Social ও
দ্বিতীয়ত পরিবেশ এবং তৃতীয়ত অর্থনীতি সম্পর্কিত ।

এবার আসুন অন্য দিকে দৃষ্টি দেই। আমরা সবাই জানি বাংলাদেশের বড় বড় কারখানা ছিল আদমজী জুট মিল বা আরও অনেক। কিন্তু আজ আর সেই কোম্পানীগুলো নেই, কারণ কখনও তাদের ‍Sustainable প্র্যাকটিস ছিলনা। কিন্তু আমরা যারা রপ্তানীমূখী কারখানায় আছি তার প্রতিনিয়তই ‍Sustainable Development প্র্যাকটিস এর সাথে জড়িত আছে এবং প্রতিনিয়ত সম্পদের ব্যবহার পরিমিত করার জন্য অনুশীলন করি বা করছি।

শুধু কি তাই! প্রতিটি সেক্টর যেমন- ব্যাংক, সংঘ, সরকার সকল ক্ষেত্রেই ‍Sustainable development এর সাথে জড়িত। যেমন ব্যাংকে গেলে Green Banking, আন্তর্জাতিক স্ট্যান্ডার্ড এ গেলে Green building/Industry, Procurement এ গেলে Green or responsible procuring, Raw Materials কিনতে গেলে পাবেন Sustainable responsible sourcing ইত্যাদি ইত্যাদি আর কত কি ।

 সর্বোপরি Sustainability বলতে আমাদের ভবিষ্যত অনাগতকে সুন্দর পৃথিবী প্রদান এবং টেকসই ব্যবসার উন্নয়ন ঘটানো

লেখকঃ এনভয় টেক্সটাইলস্ লিমিটেডের সিনিয়র কমপ্লায়েন্স ম্যানেজার হিসাবে কর্মরত আছেন। তিনি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পদার্থবিজ্ঞানে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর শেষে কর্মজীবনে প্রবেশ করেন। পরে ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি থেকে মানবসম্পদের ওপর এক্সিকিউটিভ এমবিএ ও বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ম্যানেজমেন্ট থেকে ডিপ্লোমা ইন সোশ্যাল কমপ্লায়েন্স ডিগ্রি সম্পন্ন করেন। এছাড়া তিনি ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি থেকে এনভায়রনমেন্টাল গভর্ন্যান্স ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইবিএ থেকে হিউম্যান রিসোর্স কম্পিটেন্সি ম্যানেজমেন্ট কোর্স সম্পন্ন করেছেন।

1 Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*